হারানো জিনিস খুঁজতে ব্যবহার করুন নাট স্মার্ট ট্র্যাকার

7

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক, টেকজুম ডটটিভি// হাতঘড়ি, চাবি ও ওয়ালেটের মতো ছোট ছোট জিনিসে সমূহ অনেক সময় চোখের সামনে থাকলেও খুঁজে পেতে অনেক কষ্ট হয়। আর এ বিষয়টিকে বিবেচনা করেই একটি যন্ত্রের আবিষ্কার হয়েছে যার নাম নাট স্মার্ট ট্র্যাকার। এটি আপনাকে খুব সহজেই হারানো জিনিস খুঁজতে সাহায্য করবে। খুব ছোট আকারের এই ডিভাইসটি আপনার স্মার্টফোনের সাথে সংযুক্ত করে কাজে লাগাতে পারবেন। তো চলুন শুরু করা যাক স্মার্ট ট্র্যাকার কিভাবে কাজ করে।

ডিভাইসটির গঠন:
নাট স্মার্ট ট্র্যাকারটি আকারে খুব ছোট। উন্নতমানের প্লাস্টিকে তৈরী হওয়ায় খুব সহজে নষ্টও হবে না। ডিভাইসটিতে একটি কয়েন সেল ব্যাটারি রয়েছে। একটি ব্যাটারি প্রায় তিন মাস পর্যন্ত চলে। উপরের দিকে একটি বাটন আছে যা দেখতে অনেকটা পাওয়ার বাটনের মতো। আসলে এটা পাওয়ার বাটন নয়। এটি হচ্ছে এলার্ম বাজানোর বাটন।

কি ভাবে ব্যবহারের করবেন:
নাট স্মার্ট ট্র্যাকার ব্যবহার করার জন্য প্রথমেই আপনাকে আপনার ফোনে এর সফ্টওয়্যারটি ডাউনলোড করে ইনস্টল করে নিতে হবে। এই সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে আপনি ডিভাইসটির সাথে পেয়ার অর্থাৎ দুইটি ডিভাইসের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারবেন। সংযোগ স্থাপন হয়ে গেলে ডিভাইসটি যে জিনিসের সাথে রাখতে চান সেটার সাথে সংযুক্ত করুন। যেমন ধরুন: আপনি আপনার চাবির রিংয়ের সাথে এই ডিভাইসটি রাখতে চাচ্ছেন তাহলে চাবির রিংয়ের সাথে নাট স্মার্ট ট্র্যাকারটি সংযুক্ত করুন।

কিভাবে খুঁজবেন হারানো জিনিস :
আপনার চাবির রিংটি যদি হারিয়ে যায় বা খুঁজে পেতে কষ্ট হয় তাহলে স্মার্টফোনে ইনস্টল করা সফ্টওয়্যারটি ওপেন করে এলার্মের অংশে প্রেস করলে নাট স্মার্ট ট্র্যাকারটিতে এলার্ম বাজতে শুরু করবে। আর শব্দ শোনার সাথে সাথেই আপনি খুব সহজেই আপনার চাবির রিংটি খুঁজে পেতে সক্ষম হবেন। এর আরেকটি বিশেষত্ব হলো নির্দিষ্ট দুরত্বে চলে গেলে সাথে সাথে ফোনে এলার্ম বাজতে শুরু করবে।

এবার জানুন এর আরেকটি চমৎকার ব্যবহার সম্পর্কে। ধরুন আপনার চাবির রিংয়ের সাথে লাগানো নাট স্মার্ট ট্র্যাকারটি আপনার হাতে, কিন্তু আপনি আপনার স্মার্টফোনটি খুঁজে পাচ্ছেন না। চিন্তা নেই, নাট স্মার্ট ট্র্যাকারে থাকা বাটনটিতে প্রেস করুন সাথে সাথে আপনার স্মার্টফোনে এলার্ম বাজতে শুরু করবে। তাই স্মার্টফোন খুঁজে না পাওয়া গেলেও কোন চিন্তা নেই, আছে নাট স্মার্ট ট্র্যাকার।

সীমাবদ্ধতা :
কিছু সুবিধা থাকা সত্বেও এর আছে কিছু সীমাবদ্ধতা। এর অন্যতম সমস্যা হচ্ছে এতে থাকা ব্যাটারিটি রিচার্জেবল নয়, যার কারণে আপনাকে কয়েক মাস পর পর এর ব্যাটারী বদলাতে হবে। এর আরেকটি সমস্যা হচ্ছে এটি পানি নিরোধক নয় অর্থাৎ পানিতে পরলে বা পানি লাগলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই আপনাকে খুব সাবধানে ব্যবহার করতে হবে।

দাম :
দাম কিন্তু একেবারে হাতের মুঠোয়। মাত্র ১,০০০/- টাকা। বেশকয়টি ই-কমার্স সাইট থেকে ডিভাইসটি সংগ্রহ করতে পারেন। ধন্যবাদ।