এটিকার্নির সূচকে বাংলাদেশর অবস্থান ২৬তম

0

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এক তথ্য জানানো হয়।বিশ্বের প্রথম সারির ম্যানেজমেন্ট কনসাল্টিং ফার্ম এটিকার্নির সূচকে প্রথমবারের মত স্থান পেয়েছে বাংলাদেশ।

এটিকার্নি মূলত একটি স্ট্রাটেজিক এবং টপ লেভেল ম্যানেজমেন্ট ফোকাসড শীর্ষ গ্লোবাল কনসাল্টিং ফার্ম। প্রতি বছর প্রতিষ্ঠানটি গ্লোবাল সার্ভিস লোকেশন ইনডেক্স প্রকাশ করে। সার্ভিস আউটসোর্সিং এবং ব্যাক অফিস সার্ভিসের লোকেশন পছন্দ করার জন্য ইনডেক্সটিকে বিশ্বব্যাপী খুবই গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়।

আইটি আউটসোর্সিং, ব্যাক অফিস বা অফশোরিংয়ের ভিত্তিতে বিশ্বের শীর্ষ ৫০টি দেশের এ সূচকে বাংলাদেশ ২৬তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।

চলতি বছর এ সূচকের ভিত্তিতে তৈরি প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সম্পর্কে বলা হয়েছে, প্রচলিত আউটসোর্সিং এখনও ছোট আকারে হলেও অনলাইন ফ্রিল্যান্স কাজের জন্য এটি বিশাল একটি হাবে পরিণত হয়েছে। ভারত এবং ফিলিপাইনের পরেই এটি ওডেস্কে ফ্রিল্যান্স কাজের শীর্ষস্থান অর্জন করেছে। খুব দ্রুতই এখানে ব্যবসায়িক নানান উদ্যোগও দেখা যাচ্ছে।

গ্লোবাল সার্ভিসেস লোকেশন ইনডেক্সে বাংলাদেশের এ প্রথম অন্তর্ভূক্ত হবার তথ্য জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তথ্যপ্রযুক্তি ও যোগাযাগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, এটি বাংলাদেশের জন্য আরেকটি মাইলফলক। এটিকার্নি সূচকে অর্ন্তভূক্তি হওয়ার বিষয়টি বিদেশি বিনেয়োগকারীদের এ দেশে ব্যবসা করতে আসতে উৎসাহ যোগাবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইটি খাতে বিনিয়োগকারীদের আয়কর, কাঠামেগত খরচ এবং বিনিয়োগ ফেরত নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সরকার ২০১৯ সাল পর্যন্ত শিথিল নীতি ঘোষণা করেছে। কারন সরকারের দায়িত্বই হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের ব্যবসার সুযোগ তৈরি করে দিয়ে তাদের আকৃষ্ট করা।

পলক বলেন, বেসিসের প্রাথমিক কাজ ছিলো বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে ব্র্যান্ডিং এবং মার্কেটিং করা। এ কাজটি তারা খুব ভালোমতোই করতে পেরেছে। পরবর্তী দায়িত্ব তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে নেতৃত্ব প্রসারিত করা।

সংবাদ সম্মেলনে বেসিসের সভাপতি শামীম আহসান জানান, দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নের মাধ্যমে আগামীতে বাংলাদেশের অবস্থান ২৬তম থেকে সেরা ১০ এ নিয়ে আসতে কাজ করে যাবে বেসিস। আগামীতে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে আরও বিদেশি বিনিয়োগ আসবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বেসিসের বেসিসের জৈষ্ঠ্য সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ আইসিটি মন্ত্রনালয়ের কাছে দাবি জানিয়ে বলেন, আইসিটি মন্ত্রনালয় এবং বেসিসের উদ্যোগে একটি দল গঠন করা উচিত যারা প্রতিবেদনটি মনিটর করে উন্নয়নের রূপরেখা তৈরি করবে। বাংলাদেশের ছোট যে সব অর্জন আছে সেগুলোকেও ফলাও করে প্রকাশ করতে সংবাদ মাধ্যমগুলোকে দায়িত্ব নিতে বলেন তিনি।

এর আগে গার্টনার বাংলাদেশকে বিশ্বের ৩০টি আউটসোর্সিং দেশের মধ্যে অন্তভূক্ত করেছিল। সে সময় বাংলাদেশের আইটি অবকাঠামো ও অন্যান্য বিষয়ে আরও উন্নয়নের সুযোগ রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছিলো।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিসের সাবেক সভাপিত ফাহিম মাশরুর, বেসিসের মহাসচিব উত্তম কুমার পাল, বেসিসের যুগ্মমহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, বেসিসের নির্বাহী পরিচালক সামী আহমেদ প্রমুখ।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন