ই-সভ্যতা শুরু কাগজের বিদায়ে

0

কাগজের সভ্যতাকে বিদায় জানিয়ে। এখন শুরু হয়েছে ই-সভ্যতা। তাই ইন্টারনেট কেন্দ্রিক যোগ্যতা না থাকলে আগামী দিনে অবস্যুলট হয়ে যেতে হবে। রুপান্তরিত হতে হবে ডাইনোসরের প্রজাতিতে। কাগজের পত্রিকার জায়গায় চলে চবে অনলাইন গণমাধ্যম।

সকালে মাসিক কম্পিউটার জগৎ আয়োজিত রাজধানীর শাহাবগস্থ বেগম সুফিয়া কামাল পাবলিক লাইব্রেরি প্রাঙ্গণে  শুরু হওয়া তিন দিনের এই মেলার উদ্বোধন করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি এবং খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম, এখানেই ডটকমের পরিচালক আরিল্ড ক্লোক্করহৌগ, কম্পউটার জগৎ সম্পাদক বেগম নাজমা আক্তার এবং মেলার আহবায়ক আব্দুল ওয়াহেদ তমাল।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও প্রযুক্তি খাতকে সাবলীলভাবে চালাতে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহে নিজ মন্ত্রণালয়ের সর্বাত্মক প্রচেষ্টার কথা জানান বিদ্যুৎ, জ্বালানি এবং খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি জানান, খুব শিগগিরই প্রযুক্তি নির্ভর বৈদ্যুতিক মিটারের মাধ্যমে বিদ্যুত সমস্যার আরো উন্নয়ন ঘটাতে সরকার কাজ করছে।

অপরদিকে দেশের গণমাধ্যমের কল্যাণেই আজ দেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে সুবাতাস বইতে শুরু করেছে উল্লেখ করে প্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার বলেন, প্রশাসন এবং সরকারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা মনে প্রাণে এবং কর্মে এই দর্শনটি অনুধাবন করলেই প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অনুযায়ী আগামীতে শিক্ষার্থীরা কাগজের বই নয় ল্যাপটপ নিয়েই স্কুলে যাবে। এর মাধ্যমেই আমাদের জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণের প্রচেষ্টা সফলতা পাবে।

দেশে ই-বাণিজ্য এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে মন্তব্য করে এই অবস্থার উন্নয়নে খুব শিগগিরই বিষয়টিকে আইনি কাঠামোতে অন্তর্ভূক্তির দাবি করেন মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেন, “ব্যাকিং খাতে ই-বাণিজ্য নীয়ে আইনগত কাঠামো তৈরি হলেও এখনও এর নিবন্ধন ও পরিচালনার নিয়ম নীতি তৈরি হয়নি। তাই ই-বাণিজ্য নিয়ে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠা প্রচলিত বিশ্বাস ও আস্থার সঙ্গে এখন আইনের সমন্বয় ঘটাতে হবে।”

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন