টিকেট কালোবাজারি এখন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে

0

ঈদ আসতেই ট্রেনের টিকেট হয়ে পড়ে সোনার হরিণ। বাড়তি টাকায় কালোবাজার থেকে সেই টিকেট ম্যানেজ করা নতুন কিছু নয়। তবে এবার সেই কাজটি চলছে অনলাইনে। কাউন্টারে না মিললে অনেক বাসের টিকেটও মিলছে প্রযুক্তির এই সহজলভ্য মাধ্যমটিতে।

ফলে দেশের শীর্ষ ক্লাসিফেয়েড অনলাইন হাট এখন এই টিকেট কালোবাজারির স্বর্গে পরিণত হতে যাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে, বিক্রয় ডটকম ও এখানেই ডটকম। পিছিয়ে নেই ওএলএক্স ও ক্লিক বিডি। এখানে বিক্রি হয় ভারতীয় ট্রেনের টিকেট।

অভিযোগ রয়েছে, কাউন্টারের পাশাপাশি কোটা, ভিআইপি ও কালোবাজারিদের দাপট রয়েছে অনলাইনে টিকেট সংগ্রহের ক্ষেত্রেও। ‘সার্ভার ইরর’ দেখিয়ে অনলাইনের টিকেটও চলে গেছে কালোবাজারে, মেটানো হচ্ছে ভিআইপিদের আবদার। ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাউন্টারে দাঁড়িয়ে ট্রেন ও বাসের টিকিট পাওয়া না গেলেও অনলাইন বাজারে ঠিকই টিকিট মিলছে।

অনলাইনে টিকেট না পেয়ে অনেকে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক এম জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, অনলাইনের বিজ্ঞাপন দিয়ে ট্রেনের টিকিট বিক্রি আইন সিদ্ধ নয়। কারণ এই টিকিট নন ট্রান্সফারেবল।
তবে যেসব টিকেটের বিজ্ঞাপন দেয়া হচ্ছে তা মিথ্যাও হতে পারে এবং মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য করা হচ্ছে বলে অভিতম এই রেল কর্মকর্তার।

একই বিষয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনের ম্যানেজার খায়রুল বশীর জানান, ট্রেনের অগ্রিম টিকেট বিক্রিতে কোনো রকম অনিয়ম হচ্ছে না। অবশ্য কোথাও কোনো অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

অনলাইন ক্লাসিফায়েড বিজ্ঞাপনের সাইটগুলোর জবাবদিহীতা না থাকায় এমন ঘটছে বলে মনে করছেন বিশ্লষকরা। তাদের মতে, এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে কালোবাজারি বা অবৈধ বেচা-কেনার অভায়ারণ্যে পরিণত হতে পারে এসব ওয়েবসাইটগুলো। ঠকবাজদের দৌরাত্মের শিকার হতে পারেন নিরীহ মানুষ।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন