বিনিয়োগ হারাছে ফেসবুক

0

২০১৭ সালে ডিজিটাল দুনিয়ার বিজ্ঞাপন খাতের ৮৪ শতাংশ ছিল গুগল ও ফেসবুকের দখলে। এ ছাড়া সংবাদমাধ্যমের ব্যবসার জন্যও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। পিউ রিসার্চ সেন্টারের গবেষণা অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৪৫ শতাংশ নাগরিক ফেসবুক থেকেই খবর পড়ে। বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এই হার বেশি বৈ কম নয়।

প্রতিবছর ফেসবুকের রাজস্ব প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা থাকে ৩৯ শতাংশ। ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের বিশ্লেষণে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়েছে, আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বার্কলেইসের বিশ্লেষকদের পূর্বাভাস অনুযায়ী ফেসবুকের মূল পাতার অ্যালগরিদমে পরিবর্তনের কারণে প্রতিষ্ঠানটির রাজস্বের প্রবৃদ্ধি ৯ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে।

ব্লুমবার্গের বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, সম্প্রতি স্টক মার্কেটে ফেসবুক যে ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে, সেই ধারা যদি সামনের কয়েক মাসেও অব্যাহত থাকে, তবে কত দিন বিনিয়োগকারীরা ফেসবুকের পাশে থাকেন, সেটি ভাবনার বিষয়।

তবে ফেসবুকও কিন্তু বসে নেই। গত বছর থেকেই এসব বিষয় নিয়ে বিস্তর গবেষণা চালাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। গত নভেম্বরে বিপণনের অন্য উৎসগুলো নিয়ে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছিল ফেসবুক। বিশ্লেষকেরা বলছেন, বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের সাহায্য নিতে পারে ফেসবুক। যেমন ছবি শেয়ার করার প্ল্যাটফর্ম ইনস্টাগ্রাম ও মেসেজিং অ্যাপ ফেসবুক মেসেঞ্জারে বিজ্ঞাপন দেখানোর ব্যবস্থা করা হতে পারে।

গত বৃহস্পতিবার দেওয়া সাক্ষাৎকারে মার্ক জাকারবার্গ বলেন, ‘একটি যন্ত্রকে ভালো ও খারাপ—দুই কাজেই ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু তাতেই ওই যন্ত্রটি খারাপ হয়ে যায় না। নেতিবাচক প্রভাব সম্পর্কে আপনাকে বুঝতে হবে, তবেই তা সহনীয় পর্যায়ে নামিয়ে আনতে পারবেন।’

জাকারবার্গ বলেছেন, সাম্প্রতিক সিদ্ধান্তের কারণে প্রতিষ্ঠান স্বল্প সময়ের জন্য আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এ প্রক্রিয়া চলবে। তিনি বলেন, ‘আমার দুই মেয়ে ম্যাক্সিমা ও আগস্ট বড় হলে যেন উপলব্ধি করতে পারে যে তাদের বাবা বিশ্বের জন্য ভালো কিছু করেছে। এই বিষয়টি আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন