ইউটিউবের আয়ের নীতিমালা আরও কঠোর হচ্ছে

0

ডেস্ক রিপোর্ট, টেকজুম ডটটিভি// ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউব বিজ্ঞাপনদাতাদের আস্থা ফেরাতে এবং নিম্নমানের কনটেন্ট রোধে আরও কঠোর অবস্থানের জানান দিয়েছে। সম্প্রতি ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রাম নীতিমালা আরও কঠোর হওয়ার আভাষ দিতে নতুন নীতিমালা ঘোষণা করেছে।

নতুন নীতিমালা অনুসারে, এক বছরের মধ্যে কোনো চ্যানেলের ভিডিও সর্বমোট চার হাজার ঘণ্টা দেখা হলে তবেই চ্যানেলটি বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের (অ্যাডসেন্স) জন্য আবেদন করতে পারবে। এর সাথে চ্যানেলটিতে থাকতে হবে অন্তত এক হাজার সাবস্ক্রাইবার।

শুধু নতুন চ্যানেলের ক্ষেত্রেই নয়, বর্তমানে যেসব চ্যানেল রয়েছে সেগুলোর ক্ষেত্রেও একই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে এই নিয়ম চালু করবে ইউটিউব। অর্থাৎ মোট ভিডিও ভিউ চার হাজার ঘণ্টা হয়নি এবং এক হাজার সাবস্ক্রাইবার নেই কিন্তু পার্টনার প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। এমন চ্যানেলগুলোতে ২০ ফেব্রুয়ারির পর থেকে আর কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দেখাবে না ইউটিউব।

এর আগে পার্টনার হিসেবে যুক্ত হওয়ার জন্য ইউটিউবের নীতিমালা বেশ সহজ ছিল। চ্যানেলে মোট ১০ হাজার ভিডিও ভিউ থাকলেই পার্টনার হওয়ার জন্য আবেদন করা যেত, ছিল না সাবস্ক্রাইবার সংক্রান্ত কোনো বিধিনিষেধও।

নতুন নীতিমালার বিষয়ে এক ব্লগ পোস্টে গুগলের ডিসপ্লে, ভিডিও অ্যান্ড অ্যানালিটিকস বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট পল মুরেট জানিয়েছেন, মানসম্মত ভিডিওর মাধ্যমে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে এমন নির্মাতাদের শনাক্ত করতে এবং বিজ্ঞাপন থেকে আয় বাড়ানোর ক্ষেত্রে নতুন নীতিমালা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। নামকরা ইউটিউব ভিডিও নির্মাতা লগান পলের প্রতি ইঙ্গিত করে এ ব্লগপোস্টে আরও বলা হয়, নতুন এই নীতিমালার মাধ্যমে নিম্নমানের ভিডিও আপলোড কমিয়ে আনা হবে।

পল মুরেট জানিয়েছেন, ইউটিউবারদের জন্য ‘থ্রি টিয়ার সুইটেবিলিটি সিস্টেম’ নামে আরও একটি ফিচার চালু করবে ইউটিউব। আগামী কয়েক মাসের মধ্যে এই ফিচারটি চালু করা হতে পারে। এর মাধ্যমে ভিডিও নির্মাতারা বিজ্ঞাপনের বিষয়ে আরও বাড়তি নিয়ন্ত্রণ পাবেন এবং আগের থেকেও বেশি দর্শকের কাছে পৌঁছাতে পারবেন।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন