টেলিকম সেক্টরের এক সময়ের প্রভাবশালী এবং বর্তমান দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল ফোন অপারেটর বাংলালিংকের সিনিয়র পরিচালক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন জাকিউল ইসলাম (জাকি)। ঈদের আগে ২৪ জুলাই তিনি পদত্যাগের বিষয়টি বাংলালিংক কর্তৃপক্ষকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে। প্রাথমিক অবস্থায় জানা গেছে তাকে চট্টগ্রামে বদলি করলে তিনি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে পদত্যাগ করেন।

বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াদ সিতারা বর্তমানে ঈদের ছুটিতে দেশের বাইরে রয়েছেন। তাই পদত্যাগপত্র তার হাতে দিতে পারেননি জাকি। তবে তার পদত্যাগ পত্রটি গৃহীত হলে তিনি এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কারণ জানাবেন বলে জানা গেছে। মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটবের নেতৃত্বে বিদেশিরা আসার আগ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠার পর থেকে জাকি ছিলেন সভাপতি। আর কেবল বাংলালিংকের চাকরি করলেও সব মিলে তার প্রভাব ছিল গোটা টেলিকম খাতে।

বাংলালিংকে নতুন সিইও আসার কিছু দিন পর থেকেই সিনিয়র পরিচালকের পদে নতুন কর্মকর্তা আনার উদ্যোগ নেন। পরে গ্রামীণফোন থেকে তিনি নিয়ে আসেন তাইমুর রহমানকে। পদোন্নতিসহ নানা সুযোগ সুবিধায় তাইমুর বাংলালিংকে যোগ দিলে জাকিউলের বিদায় আসন্ন হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে কাজ কমিয়ে তার পদেরও পরিবর্তন করা হয়। কিন্তু তিনি পদত্যাগ না করায় তাকে চট্টগ্রাম বদলি করা হয়।

মার্কেটিং এবং ফাইন্সিয়াল পদে যে বিদেশিরা আর স্থানীয় কাউকে দেখতে চান না সেটা নিশ্চিত হয়ে গেছে। মূলত আস্থার সংকটের কারণেই এই দুটি পদ বিদেশিদের হাতেই রাখতে চান তারা। তবে কর্পোরেটর বিভাগের দায়িত্ব এখনো স্থানীয় কর্মকর্তাদের হাতেই থাকছে। তাছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে নানা বিষয়ে সরকারের সঙ্গে দেনদরবারে সাফল্য দেখাতে না পরার কারণেই কর্পোরেটর বিভাগে পরিবর্তন হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, জাকিউল ইসলাম সর্বশেষ গভর্নমেন্ট রিলেশনস সিনিয়র ডিরেক্টর হিসেবে ওরাসকম টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেড (বাংলালিংক) কাজ করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি ২০০৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের মোবাইল ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন এমটবের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। জাকি ইসলাম ১৯৮৭ সালে বুয়েট (বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং-এ স্নাতক করেন। এছাড়াও তিনি আইইবি এর একজন ফেলো। তিনি কানাডার রয়েল রোডস ইউনিভার্সিটি থেকে নির্বাহী ব্যবস্থাপনায় এমবিএ করেছেন।

জাকি ইসলাম নেদারল্যান্ডের এনভি ফিলিপসে তার কর্মজীবন শুরু করেন। এছাড়াও তিনি সৌদিটেলিকম কোম্পানির হয়ে সাইন্টিফিক আটলান্টা, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে পুরো সৌদি আরবে উপগ্রহ যোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপনের কাজ করেন। টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা ও আইসিটি প্রযুক্তি বিষয়ে তার অভিজ্ঞতা ২০ বছরের বেশি। তিনি অসংখ্য সেমিনারে পেপার জমা দেন এবং আইটিইউ, জিএসএমএ, এপট, এসএটিআরসি, দক্ষিণ-এশীয় মোবাইল ফোরাম ইত্যাদি দ্বারা আয়োজিত অসংখ্য রেগুলেটরি ফোরাম ও সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন এবং ইনসিড থেকে নির্বাহী ব্যবস্থাপনা প্রোগ্রাম পরিচালনা করেন। জাকিউল ইসলাম নিজে একজন ইনসিড অ্যালমনাই।

উল্লেখ্য, বাংলালিংক থেকে তিনি পদত্যাগ করলেও এখন পর্যন্ত বাংলালিংকের ওয়েবসাইটে জাকিউল ইসলামের পদ ও ছবি বহাল রয়েছে।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন