জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলের বিকল্প হতে চলেছে স্মার্টফোন অ্যাপ!

0

দিনের পর দিন জন্মনিয়ন্ত্রক পিল খেয়ে নানা ক্ষতির শিকার হন বহু নারী। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে নারীদের সচেতন করতে বেশ ভালো সেবা দিতে পারছে স্মার্টফোন অ্যাপ। অনেকের প্রশ্ন, অ্যাপ কি জন্মনিয়ন্ত্রক পিলকে হটিয়ে দিতে পারে?

ব্রিটিশ গবেষক ড. এলিনা বারগ্লান্ড প্রস্তুত করেছেন ‘নেচারাল সাইকেলস’ নামের একটি অ্যাপ। ২০১৩ সালে অ্যাপটি বাজারে আসার পর এর কার্যকারিতা নিয়ে বুঝতে পারছিলেন না নারীরা। কিন্তু ব্যবহার শুরু পর দারুণ উপকৃত হচ্ছেন ব্যবহারকারীরা। ক্রমেই বাড়ছে ব্যবহারকারীর সংখ্যা। বিশেষজ্ঞের মতে, পিল খাওয়ার ঝক্কি চলে যাবে অ্যাপের ব্যবহারে।

ব্রিটিশ প্রেগনেন্সি অ্যাডভাইজরি সার্ভিস এক জরিপ চালায়। তাকে ১৬-৪৫ বছর বয়সী ১ হাজার নারীর কাছ থেকে জন্মনিয়ন্ত্রে পছন্দের পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। এদের এক-চতুর্থাংশের বেশি নারী জন্মনিয়ন্ত্রণের প্রচলিত যেকোনো পদ্ধতি নিয়ে আতঙ্কিত থাকেন। একটিমাত্র কারণ হিসেবে তারা বলেন, পিল খাওয়ার পর তাদের দেহে যে কি ঘটতে পারে, তা জানেন না তারা। এক-তৃতীয়াংশ এসব পদ্ধতি ব্যবহার করতে নারাজ।

পৃথিবীতে জন্মনিয়ন্ত্রক পিল আসার পর এ বছর ৫৫তম জন্মবার্ষিকী পার হচ্ছে। জন্মনিয়ন্ত্রণে ৯৯ শতাংশ কাজ করার আশ্বাস দেয় পিল। তবে বাস্তবে ৯২ শতাংশ কাজ করে। এর নানা মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার প্রমাণ মিলেছে। নারীদের ওজন বৃদ্ধি, বমি ভাব, স্তনের আকার নষ্ট হয়ে যাওয়া এবং উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা অহরহ দেখা যায়। এমনকি হতাশা এবং যৌনতার প্রতি বিতৃষ্ণা চলে আসার মতো মানসিক সমস্যাও দেখা দেয়।

এ সকল সমস্যার একটা সমাধান আনতে প্রস্তুত করা হয় ‘নেচারাল সাইকেলস’। বছরে এটি চালাতে খরচ পড়বে ৬০ পাউন্ড। ব্যবহার খুব সহজ। প্রতিদিন সকালে দেহের তাপমাত্রা মেপে অ্যাপটিতে লগ ইন করতে হবে। অ্যাপের মাধ্যমে আপনার সমস্যা ধরতে পারার পেছনে সাধারণ বৈজ্ঞানিক কৌশল কাজ করে। ডিম্বোস্ফোটন বা প্রোজেস্টেরনের ক্ষরণ দেহের তাপমাত্রা ০.৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি করে। অ্যাপের ক্যালেন্ডারে লাল চিহ্নিত অংশ দেখাবে আপনার গর্ভের সবচেয়ে উর্বর সময়কে। এ সময় নিজেকে নিবৃত্ত করুন অথবা কনডম ব্যবহার করতে হবে। আবার গর্ভধারণের ক্ষেত্রে নিরাপদ অবস্থান সবুজ চিহ্ন দিয়ে দেখিয়ে দেবে আপনাকে।

অ্যাপের ব্যবহার কতটা ফলপ্রসু হচ্ছে তা পর্যবেক্ষণ করছেন গবেষক। ড. বারগ্লান্ড জানান, সবুজ চিহ্ন থাকা অবস্থায় একজন নারী গর্ভবতী হয়েছেন। এর কাজ নিয়ে ব্যবহারকারীরা দারুণ সন্তুষ্ট। অনেকে এর ওপরই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন।

অ্যাপের ওপর নির্ভর করে যারা পিল খাওয়া বাদ দিয়েছেন, তারা দৈহিকভাবে নানা সুফল উপভোগ করছেন।

বার্টস সেক্সুয়াল হেলত সেন্টার এর গবেষক অ্যানা ম্যাকগ্রেগর জানান, এই অ্যাপ নিয়ে অভিযোগ তোলার অবকাশ নেই। সচেতন মানুষরা এর দ্বারা উপকৃত হতে পারেন।

অ্যাপ নিয়ে নিয়মিত গবেষণা চলছে। ২০১৪ সালের এক জরিপে বলা হয়, ব্যবহারকারী ৭০ শতাংশ নারী ‘নেচারাল সাইকেলস’ নিয়ে দারুণ উপকৃত। সূত্র : টেলিগ্রাফ

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন