বিচারব্যবস্থার ডিজিটালাইজেশন বিষয়ক কর্মশালা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকজুম ডটটিভি// বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) যৌথ উদ্যোগে মামলা ব্যবস্থাপনা ও আদালতের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে দিনব্যাপী কর্মশালা।

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, আইনমন্ত্রী অনিসুল হক, তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্য সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ ও বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রবার্ট ওয়াটকিনস উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া দিনব্যাপী এ কর্মশালায় বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা, সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও ইউএনডিপির কর্মকর্তারা, বিভিন্ন দাতা ও উন্নয়ন সহযোগীসহ সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের ই-কমিটির প্রাক্তন সভাপতি বিচারপতি জিসি বারুকা ও ইন্ডিয়ার আইসিটি বিশেষজ্ঞ কমল মুখার্জিসহ বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা কর্মশালার বিভিন্ন অধিবেশনে পেপার উপস্থাপনা করেন। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য দেন সুপ্রীম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা দায়িত্বভার গ্রহণের পরে মামলাজট কমাতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য দেশের সব জেলা আদালতের সঙ্গে ইন্টারনেট কানেকটিভির মাধ্যমে নিম্ম আদালতের বিচারকদের দৈনন্দিন কার্যক্রম পর্য বেক্ষণের আওতায় আনার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, “আমি মনে করি, এখন সময় এসেছে স্বল্প খরচে জুডিসিয়ারির জন্য উপযোগী আইসিটি অবকাঠামো তৈরি করা, যা দ্রুত মামলা নিষ্পত্তিতে ভূমিকা রাখতে পারে।” তিনি আদালতবান্ধব আইসিটি সফটওয়্যার তৈরির মাধ্যমে দেশের সব আদালতে সমন্বিত কার্যক্রম গ্রহণ করে বিচারব্যবস্থাপনাকে যুগোপোযোগী করা ও দেশের সাতটি বিভাগের সব জেলা আদালতে উন্নত দেশের আদলে আধুনিক উইটনেস ডেপোজিশন সিস্টেম চালুর নির্দেশনা দেন।

এই কর্মশালার একটি অন্যতম উদ্দেশ্য হলো, বাংলাদেশ জুডিসিয়ারির জন্য তথ্যপ্রযুক্তির চাহিদা নিরূপণ করা ও সে অনুযায়ী প্রকল্প প্রণয়ন করে দ্রুত মামলা নিষ্পত্তিতে সহায়ক ভূমিকা রাখা।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ও কোর্টরুম টেকনোলজি বিষয়ে উচ্চ আদালতের বিচারপতি ও ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সচেতনতা বৃদ্ধি; বাংলাদেশে ই-জাস্টিস পদ্ধতি বাস্তবায়নে একটি কমপ্রিহেনসিভ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণ; বিচারকার্যক্রমে উন্নত দেশের তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের সফলতা ও শিক্ষণীয় বিষয় সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি; এবং বাংলাদেশ ই-জাস্টিস কার্যক্রম বাস্তবায়নে সরকার ও দাতাগোষ্ঠীর সহায়তা নিশ্চিত করতে এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, আদালতের দৈনন্দিন কার্যক্রমে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার এবং দেশের সার্বিক বিচারব্যবস্থা ও আদালত ব্যবস্থাপনাকে সম্পূর্ণ ডিজিটালাইজড করার লক্ষ্যে ইউএনডিপি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে ২০১১ সাল থেকে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। এ ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে ঢাকা, কিশোরগঞ্জ ও রাঙ্গামাটি জেলা আদালতে ইন্টারনেট কানেকটিভি ও উক্ত তিনটি আদালতের বিচারক ও কর্মকর্তাদের তথ্য প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, ইন্টারনেট সুবিধা প্রদান করে আধুনিক মামলা ব্যবস্থাপনার সুযোগ সম্প্রসারিত করেছে।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন