নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকজুম ডটটিভি// তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নাগরিকদের স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের লক্ষ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক নাগরিক কেন্দ্রিক ই-সেবা চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। উদ্যোগ বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং ইউএনডিপি ও ইউএসএইড এর অর্থায়নে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম যৌথভাবে কাজ করবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব ব্লকের সভাকক্ষে রোববার একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম এনডিসি এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম এনডিসি বলেন, “স্বাস্থ্য, পরিবার কল্যাণ ও পুষ্টি সেবা জনগণের নিকট অধিকতর সহজ ও দ্রুত গতিতে পৌঁছানোর লক্ষ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এটুআইর সহযোগিতায় আগামীতে বিভিন্ন ই সেবা তৈরি করা হবে যার মাধ্যমে গুনগত মানসম্পন্ন স্বাস্থ্য, পরিবার কল্যাণ ও পুষ্টি সেবা প্রদানের পাশাপাশি ২০১৬ হতে যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য চালু হবে তার স্বাস্থ্য বিষয়ক লক্ষ্য ও টার্গেটসমূহ অর্জনে সহায়ক হবে।”

এই সমঝোতা স্বাক্ষরের মাধ্যমে এটুআই ই-সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করবে এবং এর ফলে নাগরিকদের ক্ষমতায়ন, বিশেষত পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য স্বাস্থ্য খাতে প্রবেশাধিকার সহজীকরন এবং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে আন্তঃখাত সমন্বয় এর উন্নয়ন সাধন করা সম্ভব হবে। স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারীর বিভিন্ন পর্যায়ের সেবা প্রদানকারীদের মধ্যে সক্ষমতা সৃষ্টি করার লক্ষ্যে এটুআই সহযোগিতা প্রদান করবে।

এই চুক্তির আলোকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণে উদ্ভাবনকে উৎসাহিত করার পাশাপাশি প্রণোদনা প্রদান , সেবা প্রদানকারীদের সংস্থা সমূহের মধ্যে স্বাস্থ্য তথ্য ব্যবস্থা, ই-স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পর্কিত উদ্ভাবনের জন্য উৎসাহিতকরণ, ইন্টার অপারেবিলিটি এর জন্য প্রযুক্তির যথাযথ মান নিশ্চিত করণ , স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পর্কিত সেবা প্রদানকারীদের সক্ষমতা তৈরিকরণ, স্বাস্থ্য তথ্য ব্যবস্থা, ই – স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পর্কিত সেবার মান পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ণ এবং স্বাস্থ্য তথ্য ব্যবস্থা, ই-স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পর্কিত সেবার জন্য সহায়ক নীতি এবং আইনি কাঠামো প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হবে।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন