‘ই-লানিং ছাড়া বাংলাদেশের গণমুখী শিক্ষার বাস্তবায়ন সম্ভব নয়’

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেকজুম ডটটিভি// ই-লার্নিং হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের আলোকবর্তিকা। ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তি সারা বিশ্বে শিক্ষাদানের সনাতন পদ্ধতির অভাবনীয় পরিবর্তন ঘটিয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের ব্যবহার ছাড়া বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের গণমুখী শিক্ষা বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) ও যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির প্রতিষ্ঠান এসবিআইটি ইনকরপোরেটেডের উদ্যোগে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বুধবার ( ২৯ জুলাই) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটরিয়ামে ‘ই-লানিং ফর এডুকেশন এ্যান্ড ট্রেনিং’ বিষয়ক এক সেমিনারে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এ সব কথা বলেন।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ইন্টারনেট ব্যবহার করে শিক্ষাদান ব্যবস্থার প্রবর্তন করা না গেলে ডিজিটাল বাংলাদেশের ভিশন পূরণ ব্যাহত হবে। বাংলাদেশে বিচ্ছিন্নভাবে ই-লানিংয়ের কাজ চলছে। তবে এ সেমিনারের মাধ্যমে এ সব রূপকারদের সঙ্গে দেশবাসীর একটা সেতুবন্ধন গড়তে চাই।’

তিনি বলেন, ‘ই-লানিংয়ের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই। এটা আমরা কত দ্রুত সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের সর্বত্র পৌঁছে দিতে পারি তাই আমাদের চ্যালেঞ্জ। ই-লানিং সকলের কাছে পৌঁছে দিতে প্রথমত বিদ্যুৎ ও দ্বিতীয়ত সর্বত্র ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ থাকা চাই। এ লক্ষ্যে সরকার কাজ করে চলছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের হার প্রায় আড়াই শ’ ভাগ ছাড়িয়ে গেছে। আর ইন্টারনেট বিস্তারে আমরা বিশ্বের মধ্যে সুমান অর্জন করেছি। গত মাসে ১৮ লাখ নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে। সারা বিশ্বে যদি ষষ্ঠ মৌলিক চাহিদা বিবেচনা করা হয় তবে সেটা হবে ইন্টারনেট।’

‘এ ছাড়া সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাড়ে পাঁচ হাজার কম্পিউটার ল্যাব, ২৫ হাজার মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমসহ দেশের বিভিন্ন স্তরে যে তথ্যপ্রযুক্তি অবকাঠামো গড়ে তোলা হয়েছে। তা ব্যবহার করে দেশের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় ই-লানিং অসামান্য ভূমিকা পালন করবে। ই-লানিং হবে ডিজিটাল বাংলাদেমের আলোকবর্তিকা’ বলেন প্রতিমন্ত্রী।

বিসিসির নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলামের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ই-লানিং বিশেষজ্ঞ জাহিদ হোসেন পনির, জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা করভি রাকসান্দ প্রমুখ।

সেমিনারে মোবাইলযন্ত্র ব্যবহার করে ই-লার্নিং বিষয়ে মূল প্রবন্ধ পড়েন সিলিকন ভ্যালির প্রতিষ্ঠান ভিবি ইশকুলের প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন। এ ছাড়া সেমিনারে বিসিসির নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলাম বাংলাদেশ সরকারের জন্য ই-লার্নিং রোডম্যাপ, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক সৈয়দ আখতার হোসেন ‘ই-লার্নিং ইন বাংলাদেশ: একাডেমিক পার্সপেক্টিভ’ এবং কোর নলেজের প্রধান নির্বাহী মুবাশ্বের মুনাফ ‘বাংলাদেশে করপোরেট ই-লার্নিং’বিষয়ক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন