ফেসবুক টাইমলাইনে পর্নো এলে যেভাবে প্রতিকার করবেন

0

সোহেল আহমেদ, টেকজুম ডটটিভি// আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অন্যতম অনুষঙ্গ প্রযুক্তি। আর এই প্রযুক্তির নেশায় আমরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেসবুকে থাকি এবং বন্ধুদের সঙ্গে চ্যাট/তথ্য আদান-প্রদান করি। আমাদের ফেসবুকে থাকে হাজার হাজার বন্ধু। আমরা যা স্টাট্যাস দেই তা আমাদের সকল বন্ধু দেখেন। কিন্তু আপনি নিজে কোনো স্টাট্যাসে পর্নো ভিডিও শেয়ার করছেন না, অথচ আপনার একাউন্ট থেকে অটোমেটিক পর্নো ভিডিও শেয়ার হচ্ছে। এতে নিশ্চয়ই আপনার মান সম্মানে আঘাত লাগছে।

আরোও পড়ুন: ফেসবুককে নিরাপদ রাখবে সিকিউরিটি চেকআপ

এটা এক ধরনের ম্যালওয়ার যা প্রন-ট্রোজান নামে পরিচিত। কারও দেয়া লিংক খারাপ ফেসবুক অ্যাপস ক্লিকে আক্রান্ত হতে পারে আপনার আইডিটি। আক্রান্ত আইডি থেকে সঙ্গে সঙ্গে অটোমেটিক ২০ এর অধিক পর্নো বন্ধুদের টাইমলাইনে ট্যাগ হতে থাকে এবং সমস্ত পিসিতে ম্যালোওয়ার ছড়িয়ে পড়ে। একটু কৌঁসুলি হলে এই বিব্রতকর সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

টাইমলাইনে পর্নো এলে যা করবেন:
এটা এক ধরনের হ্যাকিং। এখন তা হলে কীভাবে বুঝবেন আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে? আপনি যতবার ফেসবুকে লগইন করেন, ততোবারই ফেসবুকে সেই সেশনটা নোট করা হয়। যেমন: আপনি কোথা থেকে প্রোফাইল খুলেছেন, কখন খুলেছেন ইত্যাদি। দেখার জন্য প্রথমে Settings- কিক করুন। সেখান থেকে Account Settings> Security> Where YouÕre Logged In. এখানেই আপনি যাবতীয় তথ্য পাবেন। যদি দেখেন আপনি ওই একই সময়ে লগইন করেননি তবে বুঝবেন আপনার অ্যাকাউন্টটি অন্য কেউ ব্যবহার করছে বা হ্যাক করা হয়েছে। এরপর যা যা করবেন:-

১. পাসওয়ার্ড পাল্টে ফেলুন: হ্যাক হয়েছে বুঝতে পারলেই পাসওয়ার্ডটি সবার আগে পাল্টে ফেলুন। যদি হ্যাকার আপনার পাসওয়ার্ড পাল্টে দিয়ে থাকে তবে লগইন করতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে Forgot Password-এ কিক করে ইমেলে জেনারেটেড পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে তারপর পাসওয়ার্ড পাল্টান। পাসওয়ার্ড পাল্টাতে হলে ফলো করুন: Account Settings> General> Password.

২. রিপোর্ট করুন: সবার আগে ফেসবুককেই জানান যে আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে বা অন্য কেউ সেটি ব্যবহার করছে। কীভাবে জানাবেন: যে ব্রাউজারে আপনার অ্যাকাউন্ট লগইন করছেন সেখানই আরেকটি ট্যাব খুলে টাইপ করুন Facebook Help Center. যে পেজটি খুলবে সেখানে Security- এর মধ্য সবার উপরে Hacked Accounts ট্যাবের মধ্যে অনেকগুলো অপশন পাবেন। যেটি সব থেকে ঠিক মনে হবে সেটি কিক করে রিপোর্ট জানান ফেসবুককে।

৩. ড্যামেজ কন্ট্রোল: ফেসবুকে জানানোর পর বন্ধুদের জানান। যদি প্রত্যেককে আলাদা করে জানানো সম্ভব না হয় তবে ওয়ালে লিখে পোস্ট করে জানান যে আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক্ড হয়েছিল। যদি আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে কোনও খারাপ পোস্ট চোখে পড়ে বা কোনও লিঙ্ক চোখে পড়ে তা যেন কিক না করেন। সেটা ব্লক করে ফেসবুকের কাছে জবঢ়ড়ৎঃ ঝঢ়ধস করেন। এভাবে যতটা সম্ভব সকলকে সতর্ক করুন।

৪. সন্দেহজনক অ্যাপ ডিলিট করুন: অনেক সময় বিভিন্ন লিঙ্কে কিক করে যখন কোনও অ্যাপ খোলেন তখন আপনা থেকেই সেটা আপনার অ্যাকাউন্টের অ্যাপ লিস্টে অ্যাড হয়ে যায়। সেই অ্যাপ থেকেও অনেক সময় আপনার ব্যক্তিগত তথ্য পাচার হয় এবং হ্যাকারদের সুবিধা করে দেয়। ফলে সন্দেহজনক কোনও অ্যাপ চোখে পড়লেই সেটা ডিলিট করুন। কীভাবে করবেন: Account Settings> Apps. এখানে অ্যাপ লিস্ট দেখতে পাবেন। সেখানে ঝযড়ি অষষ করে ভালো করে দেখুন। যেটা ডিলিট করার হবে, মাউস পয়েন্টার সেখানে নিয়ে যান, সেখানেই ক্রস(X) চিহ্ন দেখতে পাবেন। সেটায় কিক করলেই তা ডিলিট হয়ে যাবে।

৫. সতর্ক থাকুন: যদি এমন ঘটনা ঘটে তার পর অবশ্যই সতর্ক হয়ে যান। কোনও অচেনা অজানা লোকের কাছ থেকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট অ্যাকসেপ্ট করবেন না। যদি বর্তমান ফ্রেন্ড লিস্টে কোনও সন্দেহভাজন থাকেন, তাকে সরিয়ে দিন। একটা কথা মনে রাখবেন, দুষ্টু গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল ভালো।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন