কাজী রাকিব// আমি ই-ক্যাব এর একজন মেম্বার না। ট্রেড লাইসেন্স জটিলতায় এখনো হয়ে উঠতে পারিনি। কিন্তু এই গ্রুপ এর জন্য আমার নটিফিকেশন অন করে রাখা আছে। আমি সব পোস্ট পড়ি আর আমার নিজের পক্ষে যদি কোনো তথ্য দেয়ার সুযোগ পাই তখন সেটা দিতে চেষ্টা করি।

ই-ক্যাব এগিয়ে যাচ্ছে নিঃসন্দেহে। আমি দুইটা বিষয় নিয়ে এখানে কথা বলব কিন্তু প্লিজ সেটা পজিটিভলি নেয়ার অনুরোধ রইল। একজন শুভাকাঙ্খী আমি ই-ক্যাবের। আমার ঘনিষ্ঠ ছোট ভাই ই-ক্যাবে এ অনেক ইফোর্ট দিচ্ছে দেখে আমার নিজেরও খুব ভালো লাগে। কিন্তু যদি সাধারন ভাবে একজন চিন্তা করি কিছু জিনিস মনে উঠে আসে। সো বলতে পারেন কিউরিসিটি নিয়েই জিজ্ঞাসা করা।

কয়দিন আগেই একটা ক্রাউন্ড ফান্ডিং হয়ে গেল। আমি অনেক আগে থেকেই এমন একটা কিছু চাচ্ছিলাম। হয়ত ব্যাপারটা ক্রাউড ফান্ডিং বলে সেটা বুঝিনাই কিন্তু কনসেপ্টটা সেম ছিল।

যাই হোক, ই-ক্যাব এই কাজটা করছে অনেক সাধুবাদ।কিন্তু আমার প্রশ্ন এই উদ্যেগটার ফলে বাকী যারা মেম্বার আছে তারা কি এটা আশা করতে পারে বা করবে তাদের ক্ষেত্রেও ই-ক্যাব সেম ভূমিকা নিবে?কারন বর্তমানে যারা ই-কমার্স নিয়ে কাজ করছে ৮০% ছাত্র কিংবা তাদের মূলধন খুবই কম। তারাও প্রতিনিয়ত সারভাইভ করতেছে। হয়ত কেউ ৫০০০ টাকার জন্য কাজ আটকায় আছে। তারা যদি বলে তাদের সমস্যার কথা তখন ই-ক্যাবের ভূমিকা কি থাকবে? আমি আবারো বলছি, আমি ই-ক্যাবের সদস্যদের কথাই বলছি আর আমার জানামতে ই-ক্যাবের মেম্বার প্রায় ২০০।

ই-ক্যাব কি কোনো গঠনতন্ত্র তৈরি করছে এ ব্যাপারে? কারন এক সাথে আবার ৫টা প্রতিষ্ঠান যদি ডিমান্ড করে সেটাও দেখতে হবে। আবার কেউ যদি সাড়া না পায় তাহলে একটা অসন্তোষ তৈরী হবে। সো, আমি জানতে চাচ্ছি কোনো সুনিদির্ষ্ট নিয়ম কি রয়েছে এই ধরনের উদ্যোগ পরবর্তীতে আবার করার?

২য় ব্যাপার হচ্ছে- আমার জানা মতে ই-ক্যাবে ২০০ এর মত মেম্বার যেটা একটু আগেই বলেছিলাম কিন্তু যদি সোজা কথায় বলতে হয় আমি হাতে গোনা চারটা পাচটা কোম্পানীকেই সবসময় ই-ক্যাবের সাথে দেখি,তাদের সাফল্য শুনি। তাহলে বাকীরা কেন চুপ?তারাও তো মেম্বার।

ই-ক্যাব মানে মাঝে মাঝে মনে হয় শুধু এগুলাই। ই-ক্যাব ছড়িয়ে যাক সবখানে। এক্সপান্ড করুন আরো।

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন