বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে থাইল্যান্ডের আগ্রহ

বাংলাদেশের বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে থাইল্যান্ড। দুই দেশের বাণিজ্য যৌথ বিনিয়োগ বা একক বিনিয়োগ হতে পারে মন্তব্য করে থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত ।

মিজ পানপিমন সুয়ান্নাপঞ্চ বলেন, বিনিয়োগ ও ব্যবসা বাড়ানোর মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো গভির করা সম্ভব হবে ।

সোমবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের সঙ্গে থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এর নেতৃত্বে সাত সদস্যের এক প্রতিনিধিদল সৌজন্য সাক্ষাৎ করে এই আগ্রহের কথা জানান। এ সময় তারা পারস্পারিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করে।

প্রতিনিধি দলে সাইও ট্রিপল এ গ্রুপ-এর প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ড. সুইরা সংগমিট্টা থাইল্যান্ডের বিদ্যু ও জ্বালানি খাত সম্পর্কে এবং তার কোম্পানির বিভিন্ন প্রোডাক্ট সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন। এ সময় থাই রাষ্ট্র দ্রুত আরো বলেন, বিনিয়োগ ও ব্যবসা বাড়ানোর মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো গভির করা সম্ভব হবে।

নবায়ণযোগ্য জ্বালানিতে থাইল্যান্ডের বেসরকারি বিনিয়োগের আগ্রহকে স্বাগত জানিয়ে নসরুল হামিদ বলেন, গ্রীন ও ক্লীন জ্বালানিতে সরকারের আগ্রহ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। সম্ভাবনাময় বিনিয়োগ-কারিদের আমরা উৎসাহিত করি। বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ঢাকাসহ বড় বড় শহরকে পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।

এ সময় পিডিবির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ স্প্রেডার সদস্য সিদ্দিক জোবায়ের উপিস্থিত ছিলেন।