ভ্যাট প্রত্যাহার, রাজপথে ও ফেসবুকে উল্লাস

0

নিউজ ডেস্ক, টেকজুম ডটটিভি// বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর আরোপিত সাড়ে সাত শতাংশ মূসক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আর এ খবর তাদের মধ্যে পৌছাতেই ভ্যাটবিরোধী শিক্ষার্থীদের এখন আনন্দের সুর। রাজধানীর মিরপুর রোড, ধানমন্ডি, উত্তরার হাউস বিল্ডিং, পান্থপথ, চট্টগ্রামের সিডিএ অ্যাভিনিউ থেকে অবরোধ তুলে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। অনেকে আনন্দ ও বিজয় মিছিলে মেতেছেন। আর তা ছড়িয়ে পড়ছে সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুকে।

এদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর আরোপিত সাড়ে সাত শতাংশ মূসক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে দেশের বিশিষ্টজনদের অনেকেই অভিনন্দন জানিয়েছেন। ফেসবুকে তাদের অভিনন্দন আর শুভেচ্ছার কথা তুলে ধরেছেন। তাদের সেসব অভিমত তুলে ধরা হলো।

ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রনেতা এবং আনন্দ কম্পিউটারসের প্রধান নির্বাহী মোস্তাফা জব্বার লিখেছেন, শিক্ষার ওপর থেকে ভ্যাট তুলে নেয়ায় অভিনন্দন। একইভাবে শিক্ষা উপকরণ কম্পিউটারের ওপর শতকরা ৪ ভাগ ভ্যাট আরোপ অনাকাঙ্ক্ষিত। কম্পিউটারের আমদানীতে অগ্রিম ভ্যাট আদায় করার পর খুচরা বিক্রিতে আবার ভ্যাট কেন?

techzoom.tv 3

 

বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইট বিল্যান্সারের প্রধান নির্বাহী মো. শফিউল আলম লিখেছেন, অভিনন্দন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের! সরকারকে ধন্যবাদ, শিক্ষা ক্ষেত্রে ভ্যাট প্রত্যাহার করবার জন্য। পাশাপাশি ভ্যাটের চেয়েও বেশী জনগুরুত্বপূর্ণ এবং জোরালো দাবি থাকবে, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিগুলির লাগামহীন টিউশন ফী বৃদ্ধিকে একটি নিয়মের আওতায় আনা এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে গ্রেডিং অনুযায়ী ফী বেধে দেয়া। ইউজিসি এবং শিক্ষামন্ত্রণালয় হচ্ছে গার্ডীয়ান এবং মেইন স্টেকহুল্ডার, এই ধরনের ক্রাইসিসে তাদের অগ্রণী ভূমিকা একান্তই কাম্য ছিল পাশাপাশি ভ্যাট আরোপকারী প্রতিষ্ঠানগুলির দরকার ছিল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলির ট্রাস্টিদের সাথে আলোচনা পূর্বক সিদ্ধান্ত নেয়া। শিক্ষাকে একটি মৌলিক অধিকারের পাশাপাশি আমাদের জাতীয় বিনিয়োগ হিসাবে দেখা উচিত, এই শিক্ষার্থীরাই একদিন কর্ম এবং উৎপাদনশীলতায় অংশগ্রহন করে আমাদের জাতীয় অর্থনিতিকে সমৃদ্ধ করবে।

আরেকটি পীড়াদায়ক বিষয় হচ্ছে, আমাদের শিক্ষার্থীদের মাইন্ডসেট এখনো আটকে আছে আমি যেহেতু শিক্ষার্থী তাই আমার কোন কাজ বা উপার্জন করতে হবে না শুধু পড়াশুনা করলেই হবে, অথচ এই একাডেমিক শিক্ষার ১০ ভাগও আমাদের রিয়েল ফিল্ডে কাজে আসে না, উন্নত বিশ্বে ১৮ বছরের পর থেকেই কর্ম ক্ষেত্রে ঝাঁপিয়ে পড়ে পাশাপাশি উচ্চশিক্ষায় ব্রত থাকে, সেখানে কাজ করাটাই ডিগনিটি, অকর্মা থাকাটা কোনভাবেই ডিগনিটি নয় , আমি অনেক দেখেছি যারা টিউশনি করে তাদেরকে নিগৃহীত করা হয়, বিশ্ব অনেক এগিয়ে গিয়েছে, প্রযুক্তির এই যুগে সারা বিশ্বটাই এখন কর্মক্ষেত্র, আমার অনুরোধ থাকবে, আপনারা আর এই বৃদ্ধ, অসুস্থ মা-বাবার জীবনকে বিপন্ন করবেন না, ফেসবুকিং কম করে কর্ম খুঁজে নিন অনলাইনে বা অফলাইনে।

পরিশেষে, একজন সাধারন নাগরিক হিসাবে মনে হয়, একটি দেশের অভ্যন্তরীণ রাজস্ব আদায় এবং বৃদ্ধি অবশ্যই মূল চালিকাশক্তি কিন্তু আমাদের জাতীয় নীতি হওয়া উচিত, সকল ক্ষেত্রে সেবার মান এবং উৎপাদনশীলতায় বেশী মনোযোগী হওয়া, আমাদের থ্রাবিং সেক্টর গুলি আইডেন্টীফায় করা এবং সাপোর্ট করা তারপর সেই উদ্ধৃত আয়ে ভ্যাট, ট্যাক্স আরোপ করা । আমাদের ভিশন ২০২১, ২০৪১ গুলি হাই লেভেল পয়েন্টে আটকে থাকে, সেটাকে ভেঙ্গে মেইলস্টোন নির্ধারণ করা, কিভাবে করব তার সঠিক কৌশল নির্ধারন করা, ফলোআপ করা, এচিভ করা এবং সেলিব্রেট করা। পাশাপাশি সকলের অংশ গ্রহণের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নেয়া।

techzoom.tv 1

এ এম ইশতিয়াক সারওয়ার নামের একজন লিখেছেন, অভিনন্দন ছাত্রদের, একটি অহিংস আ্ন্দোলনের পথ দেখিয়ে দেবার জন্য। অভিনন্দন সরকারকে, জলটা ঘোলা করে হলেও খাবার জন্যে। তবে শীর্ষ মহলের কতিপয় ব্যাক্তি ও সমর্থক যে ত্যানা প্যাচালেন এ কদিন,তাদের না জানি আবার বদ হজম হয়ে।
এখনো ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষা ভ্যাট দিয়েই চলছে, ২০১১ সাল থেকে।শিক্ষা পণ্য নয় এটাই যদি সরকার নৈতিক ভাবে বিশ্বাস করে,তাহলে ঐ শিক্ষাতেও ভ্যাট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেবে বলে মনে করি!

বিশেষ দ্রষ্টব্য: “উপরের সকল স্টাটাস ‘পাবলিক’ হিসাবে প্রকাশ করেছে ব্যবহারকারী। সেখান থেকেই স্টাটাসগুলো নিয়ে উপরের ফিচারটি তৈরি করা হয়েছে। স্টাটাসের দ্বায়ভার ব্যবহারকারীর নিজের। এক্ষেত্রে টেকজুম ডটটিভি কর্তৃপক্ষ কোন দায়ী থাকবে না। বিশেষ অনুরোধে কারো স্টাটাস তুলে নেয়ার সুযোগ রয়েছে।”

ছবি সূত্র: প্রথম আলো

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন