নিউজ ডেস্ক, টেকজুম ডটটিভি// সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিস্তার প্রায় সব জায়গায়৷ তা বুঝতে পেরেই ফেসবুক পেজ খুলেছিল কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ কার্যালয়৷ উদ্যোগটি প্রশংসিতও হয়েছে৷ ঢাকা সিটি কর্পোরেশনও যোগ দিয়েছে এমন উদ্যোগে উদ্দেশ্য – নাগরিক সেবা দান৷

কিন্তু প্রশ্ন হলো, ফেসবুক পেজের মাধ্যমে সেবা দান কতটা সম্ভব হচ্ছে? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের ফেসবুক পেজে প্রথমে ঢুঁ মারা৷ এই পেজ ইতিমধ্যে গণমাধ্যমে প্রশংসিত৷ জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’-র বিশেষ পর্বেও স্থান পেয়েছে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের ফেসবুকের মাধ্যমে জেনে নগরবাসীদের সেবা দানের এই উদ্যোগ৷

ফেসবুক পাতার সহায়তায় নাগরিক সেবার অনন্য দৃষ্টান্ত রেখে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের ফেসবুক পেজই শুধু প্রশংসা কুড়ায়নি, এমন একটি উদ্যোগের জন্য জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেনও পেয়েছেন ব্যাপক পরিচিতি৷ পুরস্কৃতও হয়েছেন৷ একাধিকবার দেশসেরা জেলা প্রশাসকের পুরস্কার পেয়েছেন সৈয়দ বেলাল হোসেন৷

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনেরও অফিসিয়াল ফেসবুক পাতা রয়েছে৷ তাদের উদ্দেশ্যও ফেসবুকের মাধ্যমে নগরবাসীর তরিৎ সেবা নিশ্চিত করা৷ তবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পূর্ণাঙ্গ কোনো ফেসবুক পেজ খুঁজে পাওয়া যায়নি৷

বাংলা এবং ইংরেজিতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন পরিচয়ে দু’টি ফেসবুক পাতা খুঁজে পাওয়া গেল৷ দু’টিই সম্ভবত ব্যক্তিগত উদ্যোগে খোলা এবং কোনোটারই অফিসিয়াল স্বীকৃতি দৃশ্যমান নয়৷

ঢাকার দুই মেয়র কিছু দিন হলো দায়িত্ব নিয়েছেন৷ তাঁদের কাছে রাজধানীবাসীর অনেক প্রত্যাশা৷ প্রত্যাশা পূরণের কাজ শুরু করেছেন বলেই তাঁদের দাবি৷ বড় শহর৷ বড় বড় সমস্যা৷ অনেক বছরের জমানো সমস্যা৷ অনেক সমস্যার সমাধানই সময়সাপেক্ষ৷ সাক্ষাৎকারে, সভায়, সিম্পোজিয়ামে এসবই তাঁরা বলছেন৷

ভূমি দখল, খাল ভরাট – ইত্যাদির কারণে ঢাকা মহানগরকে যানজট, জলাবদ্ধতা মুক্ত করা দীর্ঘ মেয়াদে শেষ করার মতো কাজ – এ কথা তাঁরা বলছেন দ্ব্যর্থহীন ভাষায়, জোরালো যুক্তিতে৷ সব সমস্যা দূরীকরণে সমন্বিত প্রয়াসের প্রয়োজনের কথাও বলা হচ্ছে৷

সম্প্রতি ঢাকা নগরোন্নয়ন ও নাগরিক সমস্যা দূর করার জন্য একটি টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক এবং দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন৷ তাঁরা এমন এক টাস্কফোর্স চান যা দুই সিটি কর্পোরেশন এবং সরকারের বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে সমন্বয় সাধন করবে৷ টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নীতিগতভাবে রাজি বলেও জানিয়েছেন তাঁরা৷

কিন্তু সেই টাস্কফোর্স কবে হবে? গঠন করার কয় মাস বা কয় বছর পরে গতি পাবে টাস্কফোর্স? কবে শুরু হবে জনদুর্ভোগ কমানোর নতুন এই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন? এ সব প্রশ্নের উত্তর এখনো অজানা৷ এ অবস্থায় জনগণের মন্তব্য এবং অভিযোগের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিকভাবে নগর জীবনের সমস্যা দূর করার উদ্যোগ নিঃসন্দেহে অগ্রাধিকারের দাবি রাখে৷

ঢাকা উত্তরের ফেসবুক পেজ সেই দাবি কতটা পূরণ করে, ঢাকা দক্ষিণের সিটি কর্পোরেশনও ‘অবৈধ’ পেজগুলো বন্ধ করে নিজেদের নতুন পেজ খুলে নগরসেবা ত্বরাণ্বিত করে কিনা সেটাই এখন দেখার৷

সূত্র: ডিডাব্লি্উ

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন